logo
0
item(s)

বিষয় লিস্ট

দ্বিজেন শর্মা এর শ্যামলী নিসর্গ

শ্যামলী নিসর্গ
এক নজরে

মোট পাতা: 432

বিষয়: পরিবেশ ও প্রকৃতি

  • ৳ 35.00
  • + কার্ট-এ যোগ করুন

প্রাক-কথন

 

তরু-নির্ভরতা অমোঘ নিয়তি বলেই সেই প্রাগৈতিহাসিক কাল থেকে অদ্যাবধি মানুষ প্রকৃতির এই অনুষঙ্গের প্রবল অস্তিত্বে জাদুমুগ্ধ সভ্যতার অগ্রগতি মানুষের স্বাধীনতাকে বহুদূর প্রসারিত করলেও প্রকৃতির আওতা থেকে পূর্ণ মুক্তির দিন সুদূর ভবিষ্যতেও অস্পষ্ট আমাদের খাদ্যবস্তুর এক ও অনন্য জোগানদার এই তরুরাজ্য অধুনাতম বৈজ্ঞানিক আবিষ্কারও এ পথে বিকল্পের সন্ধান দিতে পারে নি এই নির্ভরতার এ পর্যায়ের শেষ কবে কেউ জানে নাআদিম উদ্ধত প্রকৃতির ভয়ঙ্কর নৈরাজ্যে অসহায় আমাদের পূর্বপুরুষদের কাছে তরু ছিল জীবনের প্রিয় আশ্বাস বলা যায়, তারও আগে তাদের বর্তমান পরিচয় বিবর্তনের অধস্তন কোনো স্তরে যখন অস্পষ্ট তখনও তরুর সঙ্গে সখ্য ছিল নিবিড় রৌদ্রের তাপ, বাত্যার প্রহার, ক্ষুধার দাহ থেকে অব্যাহতির জন্য সভ্যতার এ প্রোজ্জ্বল মধ্যাহ্নেও আমরা তরু-মুখাপেক্ষী লক্ষ লক্ষ বছরের এই সংযোগে কখনও সখ্যে, কখনও শত্রুতায় আমাদের জৈবিক উত্তরাধিকারের গভীরে যে মূল বিস্তার করেছে, অবচেতন থেকে চেতনায়, এষণা থেকে ঐতিহ্যে তা প্রোথিত প্রকৃতি আমাদের মা আমরা তার অন্যতম অংশ হিসেবেই বিবর্তিত হয়েছি আমাদের পূর্বপুরুষেরা লক্ষ লক্ষ বছর ধরে প্রকৃতির মুক্তাঙ্গনে বসবাস করেছেন তাই এর দৃশ্য-গন্ধ-শব্দ এবং গভীর নির্জনতায় একাকিত্বের সহজাত বাসনা আমাদের মনের গভীরে এত দৃঢ়বন্ধ ঝরে পড়া পাতা, নতুন খড়ের আঘ্রাণ, পাহাড়ি ঝরনার কলনাদ, মুখের ওপর মেঠোঘাসের রসাল স্পর্শ, ওক-কাণ্ডের গ্রন্থন অথবা এপ্রিল আকাশে তার উচ্ছ্বসিত বর্ণের বিকীর্ণ হলুদহরিৎ তাই অনুরণিত হয় আমাদের স্নায়ুর গভীরে আমাদের মানুষের সুদূর অতীতের সঙ্গে যুক্ত এ স্মৃতি অবিস্মরণীয়

তাই প্রকৃতির প্রতি আমাদের সহজাত আকর্ষণ শুধু সংস্কৃতিচর্চার ফলই নয়, জৈবিক উত্তরাধিকারও কিন্তু এ বোধ কোনোক্রমেই একমুখিন নয়, বিপ্রতীপ শক্তির সঙ্গে দ্বন্দ্বে তা সদা ক্ষুব্ধ কারণ, প্রকৃতির প্রতি মমত্ববোধের পাশে তারচেয়েও শক্তিশালী আর একটি বাসনা মানুষের মনে সেই আদিকাল থেকেই অঙ্কুরিত ছিল : এ হলো আত্মপ্রতিষ্ঠার বিদ্রোহ প্রকৃতির সঙ্গে সংঘাত ও তাকে পর্যুদস্ত করার এই লক্ষ্য আজ বহুদূর সম্পূর্ণ অতীতের সেই বিদ্রোহী অঙ্কুর আজ বিকশিত বিশাল মহীরুহে তবু দ্বন্দ্বের পূর্ণ নিরসন সম্ভব হয় নি হওয়ার সম্ভাবনাও দুর্লক্ষ্যসমাজবিবর্তনের ফলে শোষণমূলক সমাজসংস্থানের উদ্ভব সমাজের অভ্যন্তরের দ্বন্দ্বকে প্রকৃতির পরিমণ্ডলেও প্রসারিত করেছে, মানুষ কর্তৃক মানুষ শোষণ প্রকৃতির নির্বিচার শোষণেও সংক্রমিত হয়েছে এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিদ্যার উন্নতি তা তীব্রতর করেছে কিন্তু ফল শুভ হয় নি তাই জল-স্থল অন্তরীক্ষের একচ্ছত্র অধীশ্বরের অহঙ্কারে উদ্ধত মানুষ হঠাৎ আবিষ্কার করছে তার ব্যর্থতা ও অসঙ্গতি অণুবিদারণের বিপুল সাফল্যও মানুষকে প্রকৃতির শৃঙ্খল থেকে মুক্তি দিতে পারে নি সে আজ বলশালী, তার জ্ঞানান্বেষা সুদূরতর পরিমণ্ডলে প্রসারিত, কিন্তু শক্তি অর্জনে সাফল্যের তুলনায় তার প্রজ্ঞার সম্বল অত্যন্ত দীন

প্রকৃতির প্রতি আমাদের রোষকষায়িত দৃষ্টি এখন কিছুটা স্নিগ্ধ যে আক্রোশে মানুষ এতদিন অরণ্য উচ্ছেদে প্রকৃতিকে বিবস্ত্র করেছে, একালের মনে তার সমর্থন নেইএখন আমরা জানি এ জয় নয়,শোষণ জ্ঞানের ওপরে যেখানে লোভের প্রাধান্য সেখানে হতাশাই অনিবার্য পরিণতি তাই আধুনিক যন্ত্রসভ্যতার বিপুল ত্বরণ আর প্রযুক্তিবিদ্যার অন্ধনিয়মের শিকার এই মানুষ আজ তার নিজের সৃষ্ট পৃথিবীতে এক দিগভ্রান্ত পথিক, প্রাচুর্যের মধ্যে অন্তহীন অভাব, শান্তির প্রয়াসে অনিশ্চয়তা ও উদ্বেগের বৃদ্ধি, সুখের সন্ধানে বেদনার অভিজ্ঞতার অসঙ্গতিতে সে এখন অস্থির জয় ও ব্যর্থতার মধ্যে দোলায়িত তার চেতনা নতুন সত্যদৃষ্টির অপেক্ষায় আজ উন্মুখ

এ সমস্যা প্রযুক্তিবিদ্যা,অর্থনীতি ও সমাজ-সংগঠনের সঙ্গে ওতপ্রোতভাবে জড়িত হলেও মানুষ যেহেতু জীব এবং প্রকৃতির সঙ্গে তার সংযোগ শুধু অর্থনীতিনির্ভর নয় বাস্তব্য-রীতিনিয়ন্ত্রিতও, তাই জীববিজ্ঞানের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা এক্ষেত্রে প্রশ্নাতীত এর অধুনাতম ধারণা বাস্তবচৈতন্য (ecologic consciousness) এ পথে পর্যাপ্ত আলোকপাতে সক্ষম মানুষ প্রকৃতির অন্যতম শক্তিভূমিকম্প, ঝড়, জলোচ্ছ্বাসের মতো সেও ভূপৃষ্ঠের বহু পরিবর্তন সাধনে সক্ষম প্রায় বারো হাজার বছর আগে, খাদ্যসংগ্রহ থেকে খাদ্য-উৎপাদনের বৈপ্লবিক উত্তরণ ক্রমান্বয়ে তাকে পৌরসংগঠনে,খাদ্যমজুদ, বাণিজ্য ও সর্বশেষে শিল্পবিপ্লবের বিপুল সম্ভাবনার ঐশ্বর্য দিয়েছে প্রকৃতির রাজ্যে তার দাসত্বের ভূমিকা শেষ হয়েছে বহু আগেই সে এই বারো হাজার বছর ধরে বিবর্তিত হয়েছে প্রকৃতির অন্যতম শক্তিরূপে এই ইতিহাসের সাফল্য কৃষি, শিল্প, গতি, স্বাচ্ছন্দ্য; এর ব্যর্থতা শোষণমূলক সমাজ প্রতিষ্ঠা এবং প্রকৃতির স্বকীয় ভারসাম্যের বিঘ্নজনিত বিকৃতি জীবমণ্ডলের (biosphere) স্বয়ংসম্পূর্ণতা আধুনিক মানুষের আবির্ভাবের সঙ্গে সঙ্গেই বিঘ্নিত হয়েছে মানবজাতির এই আচরণ শুধু প্রকৃতিকেই নয়, নিজের জৈবধর্মকেও বহুদূর প্রভাবিত করেছে অবশ্য এ লাভালাভের বিচারে মতানৈক্য স্বাভাবিক মানুষের পক্ষে ইতর প্রাণীর অনুরূপ প্রকৃতি-আনুগত্য অবাস্তব তার নিজের বিশেষ দৈহিক সংগঠনের মধ্যে যে আশ্চর্য সম্ভাবনা উপ্ত ছিল,বর্তমান মানুষ তার অনিবার্য বিকাশেরই ফল এই অর্থে মানুষ নিজেই তার স্রষ্টা প্রকৃতিকে নিরন্তর পরিবর্তনের মধ্যে সে নিজেকেও পরিবর্তিত করেছে বলা বাহুল্য,এ পরিবর্তন পরিপার্শ্বে যে দ্রুতিতে সংগঠিত হয়েছে সমাজের ক্ষেত্রে, তার নিজের ক্ষেত্রে এই গতি অব্যাহত থাকে নি মানুষ প্রাকৃতিক নিয়মকে যে আগ্রহে আবিষ্কারের প্রয়াস পেয়েছে,নিজের ক্ষেত্রে তার তীব্রতা অটুট রাখে নি আজ আমরা প্রকৃতির রাজ্যে জীবনকেই জানি সবচেয়ে কম এই অজ্ঞতার জন্যই প্রকৃতি-পরিবর্তনের সার্বিক কর্মকাণ্ড ত্রুটিমুক্ত হয় নি এরই পরিণাম বর্তমান সভ্যতার সঙ্কট ও সার্বিক ধ্বংসের মুখোমুখি দাঁড়িয়ে আমাদের রুদ্ধশ্বাস প্রতীক্ষা প্রকৃতিকে যথেচ্ছ দোহনের পরিণাম সম্পর্কে যারা একদা হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেছিলেন,বর্তমানে সঙ্কট পর্যায়ে তাদের যুক্তির পুনর্মূল্যায়ন করা উচিত প্রকৃতির যে সম্পদ আহৃত হয়েছে তার অধিকাংশই বিনিময়ভিত্তিক নয় খনিজ দ্রব্য,তৈল, গ্যাস এবং গভীর ভূস্তরে সঞ্চিত শিলীভূত বারি,নষ্টভূমি কোনোকালেই আর প্রতিস্থাপিত হবে না আমাদের সৃষ্ট যেসব রাসায়নিক পদার্থ এখন বায়ু,ভূ ও জলে নিক্ষিপ্ত তা প্রকৃতির স্বাভাবিক আত্তীকরণের রীতিভুক্ত নয় এগুলো বাড়তি এবং বিপজ্জনক আণবিক বোমার উন্মাদ প্রতিযোগিতা ও আবহদূষণে মানবজাতির মারাত্মক কর্মকাণ্ড এর প্রকটতম নিদর্শন অথচ মনে রাখা দরকার যে প্রকৃতির নিজের এমন একটি সুনিয়ন্ত্রিত নিয়মশৃঙ্খলা রয়েছে যার তাৎপর্য যথাযথ অনুধাবন ব্যতীত তার রদবদল আপাতদৃষ্টিতে লাভজনক বিবেচিত হলেও আখেরে মারাত্মক হতে পারে স্মর্তব্য যে মধ্যজীবীয় (mesozonic) যুগ থেকে ভূপৃষ্ঠে জৈবভারের (biomass) সামগ্রিক পরিমাপে বিশেষ কোনো রদবদল হয় নি কালক্রমে বহু প্রজাতি,গণ,গোত্রের উদ্ভব ও বিলয় ঘটেছে কিন্তু জি. জি. সিম্পসন বর্ণিত হস্তান্তর প্রক্রিয়ায় প্রকৃতির দেনাশোধের ভার একের পর এক প্রজাতির ওপর ক্রমান্বয়ে ন্যস্ত হয়েছে, কখনও থামেনি জীবনের পরিবর্তন ঘটলেও অব্যাহত রয়েছে জৈবপ্রক্রিয়া মানুষের অদূরদর্শিতা ও প্রলোভনস্পৃহায় প্রকৃতির এই সুষম ভারসাম্য আজ বিঘ্নিত এবং সে নিজেও বিপন্ন হয়েছে এজন্যই

সংশ্লিষ্ট বই

পাঠকের মতামত
  • Rating Star

    “ ” - Bookworm

রিভিউ লিখুন
রিভিউ অথবা রেটিং করার জন্য লগইন করুন!